বটিয়াঘাটায় দোকান আগুনে পুড়ে ভস্মিভুত

তুরান হোসেন রানা, বটিয়াঘাটাঃ

বটিয়াঘাটা উপজেলার আমিরপুর ইউনিয়নে করেরঢোন (গ্রীন বাংলা হাউজিং মোড়) এলাকায় একটি মুদি দোকান আগুনে পুড়ে ব্যাপক ক্ষতিসাধন হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।
ভুক্তভোগী ও এলাকাবাসী সুত্রে জানা যায়, গত ৩ সেপ্টেম্বর গভীর রাতে কে বা কারা শরিফুল ইসলামের মুদি দোকানে আগুন ধরিয়ে দেয়। দোকানের ভিতরে থাকা যাবতীয় মালামাল সহ ক্যাশে থাকা নগত টাকা পুড়ে ভস্মিভুত হয়ে যায়।
ভুক্তভোগী শরিফুল ইসলামের স্ত্রী লাবণী খাতুন বলেন, এই মুদি দোকানের আয়ের মাধ্যমে আমাদের সংসার চলতো দীর্ঘদিন ধরে আমার স্বামীর চাচাতো ভাইদের সাথে জমি জায়গা নিয়ে বিরোধ চলে আসছে। কিছুদিন আগে তারা আমার স্বামীকে মারপিট করে। যার প্রেক্ষিতে আমরা আদালতে একটি মামলা দায়ের করি। উক্ত বিষয় কে কেন্দ্র করে পুর্বপরিকল্পিত ভাবে আমার স্বামীর চাচাতো ভাই করেরঢোন এলাকার মাবুর ফারাজী, ওবায়দুল্লাহ ফারাজী, রফিক ফারাজী, বাশার ফারাজী, আরা ফারাজী, খিলাফাত ফারাজী, তামিম ফারাজী ও মুসা ফকির মিলে আমাদের দোকানে আগুন ধরিয়ে দেয়।

লাবণী খাতুন আরো বলেন, এই আগুন ধরানোর ফলে আমার স্বামীর প্রায় ৬লক্ষ টাকার ক্ষতি হয়।
উক্ত ঘটনার প্রেক্ষিতে লাবনী খাতুনের স্বামী শরিফুল ইসলাম তার চাচাত ভাই মাবুর ফারাজী সহ ৯ জনকে আসামী করে বটিয়াঘাটা থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করে।

স্থানীয় চায়ের দোকানদার ইউসুফ শেখ বলেন, রাত আনুমানিক ৪ টার দিকে আমি আগুন ধরার খবর পেয়ে ছুটে আসি এবং সবাই কে সাথে নিয়ে আগুন নিভানোর চেষ্টা করি। আগুনের লেলিহান শিখা দাবানলের মত জলতে থাকে যার ফলে আমরা আগুন নিভানোর আগেই সব মালামাল পুড়ে ছাই হয়ে যায়।

স্থনীয় জাহিদ হাসান বলেন, লোক মুখে আমরা আগুন ধরার কথা শুনতে পেয়ে ওই রাতেই ছুটে আসি। এসে দেখি আগুন জলছে। তারপর সবার সাথে মিলে আগুন নিভানোর চেষ্টা করি।

বটিয়াঘাটা থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ সাহজালাল বলেন, অভিযোগ পেয়েছি তদন্ত পূর্বক আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.