পুরস্কার পেয়ে কাঁদলেন মেয়ে,কাঁদালেন বাবাকেও

বাংলাদেশ প্রতিক্ষণঃ

পুরস্কার পেয়ে কাঁদলেন মেয়ে,কাঁদালেন বাবাকেও

যুব প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের জন্য জাতীয় আইটি প্রতিযোগিতা ২০২২
——–
ছবিতে দেখতে পাওয়া মেয়েটি কথা বলতে পারেনা, কানেও শুনতে পায়না।

গত ৩০মে এশিয়া প্যাসিফিক বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশল বিভাগের ল্যাবে বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল ও সিএসআইডি আয়োজিত শারীরিক, বাক ও শ্রবণ, দৃষ্টি এবং নিউরো-ডেভলোপমেন্টাল শারিরীকভাবে অক্ষম শিক্ষার্থীদের জন্য জাতীয় তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়।

এ প্রতিযোগিতায় একশো’র বেশি প্রতিযোগী অংশ নেয়।
ছবিতে দেখতে পাওয়া মেয়েটি তাদের একজন।

পুরস্কারের জন্য যখন মেয়েটির নাম উচ্চারিত হলো, তখন সে বুঝতে পারেনি। স্বেচ্ছাসেবী এসে যখন তাকে নিয়ে পুরস্কারের মঞ্চে নিয়ে গেলো, তখনও সে ঠিক বুঝে উঠতে পারেনি। পুরস্কার নিয়ে এসে বাবাকে জড়িয়ে সে কিছু বলতে চেয়েছিলো, কিন্তু তার বাবা তার অব্যক্ত চিৎকারে কান্নায় ভেঙে পড়েন। মেয়েকে তিনি ধার করা কম্পিউটারে প্রশিক্ষণ দিয়েছিলেন, একটা ল্যাপটপও তাঁর পক্ষে জোগাড় করা সম্ভব হয়নি। তাই বোধহয় আনন্দের থেকে দুঃখবোধও প্রবল, সাধ ও সাধ্যের ব্যবধানও ক্রমশঃ বর্ধনশীল।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং তার সুযোগ্য কন্যা সায়মা ওয়াজেদ পুতুল এর নেতৃত্বে বিগত ১৩ বছরে এদেশের মানুষ সচেতন হয়েছে। প্রতিবন্ধীদের অধিকার অধিকার ও কল্যাণ নিশ্চিত করতে ২০১৩ সালে “প্রতিবন্ধী সুরক্ষা আইন ” প্রণয়ন করা হয়েছে । সমাজে তাদের অধিকার নিশ্চিত এ সরকার কাজ করে যাচ্ছে। তারাও ঘরে বসে নেই। নিজ নিজ মেধা ও সামর্থ্য দিয়ে দেশের উন্নয়নের অগ্রযাত্রায় অবদান রেখে চলেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.